ধনী হতে চায় না এমন মানুষ পৃথিবীতে খুঁজে পাওয়াই মুশকিল তাই বলে কি সবাই ধনী মানুষের মতো

 



ধনী হতে চায় না এমন মানুষ পৃথিবীতে খুঁজে পাওয়াই মুশকিল তাই বলে কি সবাই ধনী মানুষের মতো জীবন যাপন করতে পারবে মানি রাজার হালে জীবনযাপন কর্তৃক সবাই আসলেই পারবে সেটা কখনোই নয় আপনি শুনলে অবাক হয়ে যাবেন আপনি কতটা ধনী সেটা নির্ভর করছে সম্পূর্ণ আপনার লাইফ স্টাইল অ্যাটিটিউড এর উপরে আমরা মানুষের শ্রেণীর করি তাহলে আমরা সাধারণত তিনটি ক্যাটাগরিতে এবং আমরা সকল মানুষের একটি শ্রেণীতে পড়ি এখন চলুন এগুলো আসলে একটি প্রথমটি হলো কিছু মানুষ আছে দেখবেন সবকিছুতেই খুব বেশি তাড়াহুড়ো করে অর্থাৎ তারা কিছুতেই বিশ্বাস করে সব কিছু নিজের জীবনের সবচেয়ে ধনী হওয়া থেকে শুরু করে পোলতা পর্যন্ত আমার মাথাকে কাজে কোন কোন খেলা তারপর ঘুরে বেড়ায় আর মাসের পর মাস বছরের পর বছর এভাবে করে জীবন যাপন করে যাচ্ছে এদের কি বলা হয় থাকার কারণে মত জীবন যাপন করে এখানে থাকে ওখানে থাকে কোথায় কি করে না করে তার কোন ঠিক ঠিকানা নেই এরা আসলে কারো নামে একটি 

বিশেষ করে অর্থাৎ জীবন যাপন করবো জীবনের সবকিছু তো আসবে যাবে কিন্তু জীবনের মুহূর্তগুলো জীবনের প্রত্যেকটা মুহূর্ত উপভোগ করতে চাই সেটা যেকোন মূল্যেই হোক এরা সাধারণত কোন দোষই খুঁজে পায় না আপনি জীবনে সুখী হতে হলে কি করতে হবে প্রথমে ফ্যামিলি ফ্যামিলি সন্তুষ্টি বুঝানো হয়নি এর মধ্যে আপনার বন্ধু-বান্ধব কেউ এবং আপনার ফ্যামিলির আশেপাশে যারা থাকে তাদেরকে বোঝানো হয়েছে আপনার ফ্যামিলি আপনাকে কেন আপনি শান্তিতে রাখতে পারবেন না কারণ যেকোন বিপদে আপদে সুখে-দুঃখে এবং সকল কিছুতেই আমরা ফ্যামিলির সাথে থাকি ফ্যামিলিকে 71 এর মানে হচ্ছে মনে করেন আপনার সম্পত্তি বিশাল এক বাড়ির মালিক আপনি যেখানে আপনার পরিবারের সদস্যদের বা কাজের লোকের কোন অভাব নেই কিন্তু আপনি শারীরিকভাবে অসুস্থ তাহলে কি আপনি আসলেই সুখে-শান্তিতে জীবনটা কাটাতে পারবেন সেটা কখনোই না এর জন্য বলা হয়ে থাকে অর্থাৎ সকল সুখের মূল তৃতীয় একটি মানে দাঁড়ায় অর্থাৎ স্বাধীনতা আপনার ফ্যামিলি টাকা পর্যন্ত সবকিছুই 

আছে পাশাপাশি আপনি শারীরিকভাবে অসুস্থ রয়েছেন কিন্তু যদি আপনাকে জেলে বন্দি করে রাখা হয় তাহলে জীবন উপভোগ করতে পারবেন আপনার জীবনের স্বাধীনতা থাকতে হবে শুধুমাত্র বাসায় থেকে অনেকে পরাধীন থাকেন আশা করি এই পরাধীনতা মতো এখানে কী বোঝানো হয়েছে সেটি আর কারো বুঝতে বাকি নেই তাহলে বুঝতেই পারছেন জীবনে সুখী হতে হলে ফের প্রয়োজনীয়তা কতটুকু তাহলে এবার আপনি বলুন কোন মানুষটি তার জীবনের সবচেয়ে ভালো ভাবে জীবন যাপনের ক্ষেত্রে কাজে লাগাতে পারবে একজন সাধারন মানুষ যিনি তিন বেলা খাবার খাওয়ার জন্য অন্যের অধীনে কাজ করে যাচ্ছেন দিনের বেশিরভাগ সময় এখন আপনি চিন্তা করুন কোন ব্যক্তি তার ফ্যামিলিকে সবচেয়ে বেশি সময় দিতে পারবে তালিকা করতে পারবে যে ইচ্ছে তাই করতে পারবে সম্প্রচারিত আপনাকে জীবনে সুখী হতে হবে এবং আপনি ধনী হতে হবে সেটি কি করলাম কিন্তু যদি আপনি অন্য মানুষদের মতোই ধনী হতে চান তাহলে আপনার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাবে লেখক বলেছেন আপনাকে আমি বিয়ে করতে পারব না তাহলে আপনার জন্য কারণ আপনি ঠিক করে নিতে হবে আপনার করতে পারবেন 

এরপর মানে দুই নাম্বারে যেটি আছে সেটি হলো বিষয়টির একটি উদাহরণের মাধ্যমে আপনাদের কে বোঝানো যায় না মনে করেন আপনার হাতে ঘন্টা সময়ের কয়েকটি প্রতিষ্ঠান এক ঘন্টা এক ঘন্টা করে কাজ করেন এখন আপনার প্রত্যেকটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দূরত্ব কত কিলোমিটার করে এখন যদি আপনি এক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতিষ্ঠান যার কারণে ঘণ্টার মধ্যে মাত্র তিনটি প্রতিষ্ঠান কাজ করতে সক্ষম হচ্ছে বারোটা বেজে যাচ্ছে কিন্তু কখনো কি একবার হিসাব করে দেখেছেন তাহলে আপনি তিনটি প্রতিষ্ঠানপ্রথম পাঁচটি প্রতিষ্ঠান কাজ করতে পারতেন যার ফলে পায়ে হেঁটে আপনি যে টাকা পাচার ছিলেন দুইটি নতুন প্রতিষ্ঠান কাজ করে আপনি তার চেয়েও অনেক বেশি টাকা আয় করতে পারতেন 

স্ক্রলের ব্যক্তিরা কি করে 10 টাকা বাঁচানোর জন্য তারা তাদের সহযোগীদের এই পথ অবলম্বন করেও ধনী হওয়া সম্ভব কিন্তু যদি আপনি এই পথ অবলম্বন করে জীবন যাপন করতে থাকেন তাহলে মিলিয়নার হতে আপনার প্রায় 25 থেকে 30 বছর সময় লেগে যাবে আপনার নিজের বয়স 50 এর উপরে আপনিতো পরিণত হবে সময় আপনি আপনার জীবনটাকে উপভোগ করতে পারবেন না একটা উদাহরন দিয়ে বোঝানো যায়যুবক বয়সে যদি আপনাকে একটি মোটরসাইকেল দিয়ে বলা হয় আপনি যেখানে ইচ্ছে ঘুরে বেড়াতে চলে যায় তাহলে আপনার কেমন বোধ হবে একটু ভাবুন অবশ্যই মনে হবে যে আপনি পাখির মত উড়ে বেড়াচ্ছে কিন্তু যদি একই কথা আপনাকে বৃদ্ধবয়সে বলা হয়ে থাকে তাহলে কি আপনার কখনো মনে হবে আমি এই বয়সে মোটরসাইকেল নিয়ে একটু ঘুরে বেড়াই ঠিক কথাটাই আমি 

আপনাদেরকে বলতে যাচ্ছি আপনি হয়তো বা একদিন ধনী হয়ে যেতে পারবেন ঠিকই কিন্তু আপনি আপনার জীবনকে উপভোগ করতে পারবেন না তবে আমি এই কথা বলতে চাই না কারণ জীবনে ধনী হওয়ার চেয়ে ধনী হওয়া অনেক ভালো কারণ সবাইকে দিয়ে সবকিছু হয়না কারন পৃথিবীতে খুব কম সংখ্যক মানুষ আছে তাহলে আপনি যদি খুব দ্রুত ধনী multi-million হতে চান আপনাকে অনুসরন করতেই হবে আসলে সাইডবারে অস্ট্রেলিয়ার ব্যক্তিদের মধ্যে মূল পার্থক্য হল তাদের চিন্তা ভাবনা করুন এবং সাইডে ব্যক্তিরা তাদের জ্ঞানের পরিধিকে তাদের একাডেমির বাইরে নিয়ে যেতে চাই না কখনো তারা বাইরে কোন কিছু করতে সময় দেয় সেটা ওষুধপত্র তাদেরকে বাড়ানোর জন্য কিভাবে তার শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে আরেকটু বেশি ইনকাম করা যায় শুধুমাত্র তার জন্য কিন্তু সম্পূর্ণ উল্টো এর 

প্রথম নিজেকে নিয়ে কিভাবে আমার নিজেকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে তারা যা কিছু করে গড়ে তোলার জন্য কোন মাধ্যমে কোন কোন সৃষ্টি করতে চাই যেটার মাধ্যমে তাদের ঘরে বসে থাকলেও তাদের ইনকাম আসতেই থাকবে এই রকম ব্যবস্থা কিভাবে করা যায় সেই চিন্তা তাদের মাথায় সবসময় ঘুরপাক খেতে থাকে এরা অনেক বেশি মূল্যবান মনে কিন্তু কোন ব্যক্তি তার নিজের চেয়ে বেশি মূল্যায়ন করে থাকে সময় জ্ঞানী ব্যক্তিরা সবসময় বলে থাকেন যে তার পিছনে ছুটে যেও না শুধুমাত্র নিজের অর্জন করতে থাকো দেখবে টাকা তোমার পিছনে পিছনে ছুটে যাবে ধরা যাক আপনি দেখে থাকবেন একজন পুরের বৃষ্টিতে ভিজে সর্বোচ্চ 500 থেকে 700 টাকা রোজগার করে কিন্তু খোঁজ নিলে আপনি কেমন আছেন স্যার কে দেখতে পারবো ঘরে বসে বসে থেকে 10 হাজার টাকা রোজগার করছি আপনি হয়তোবা মনে করতে পারেন কিন্তু বিষয়টি আসলে সেই রকম নয় এরা দুজনেই কিন্তু 

সময়কে বিক্রি করে টাকা রোজগার করছে বিষয়টি সেটা হলো আপনি যদি সময়কে বিক্রি করে টাকা রোজগার করেন তাহলে আপনার কনট্রোল কিন্তু আপনার হাতে থাকবে না কারণ আপনি যদি কোন অফিসে চাকরি করেন তাহলে আপনি আপনার বসকে একথা কখনোই ভুলতে পারবেন না আমি গত মাসে প্রচুর পরিশ্রম করেছি তাই এ মাসের টাকা আমার কয়েকদিনের ছুটি লাগবে কিন্তু এমন কোনো বিঘ্ন সৃষ্টি করতে পারে এরকম একটি বিজনেস সিস্টেম তৈরি করা এতটা সহজ নয় যদি একই সাথে আসলেন এবং হলেন একজন ব্যক্তিকে দুটি কাজ হয় তাহলে আপনি দেখতে পাবেন দুজনই হয়তো কাজটি সম্পন্ন করবে কিন্তু পাশের লোকটির সময় অবশ্যই কম লাগবে এর প্রধান কারণ বিড়ি হলো প্রাকৃতিক পলিটেকনিক এত কথার পর স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন এসে যায় আমি কিভাবে পথচারী হতে পারে পথচারী হতে হলে আপনাকে অবশ্যই টাকা পয়সা দিতে হবে আপনাকে মার্কেট রিসার্চ এর মাধ্যমে এমন একটি কিছু করতে হবে যেটা মানুষের হরহামেশাই দরকার যেটা মানুষকে অনেক কিছু 

শিক্ষা যেটা পড়ে মানুষ মজা করতে চাই এমন কোন কিছু আর যখনই আপনি এইধরনের পোস্ট করতে পারবে তখনই আপনার প্রোডাক্টের পপুলার চরমে পৌঁছে যাবে করতে সাহায্য করবে সাধারন ফেসবুকের কথাই ধরুন না কেন প্রথমত মিটানোর জন্য তার কয়েকজন বন্ধুরা ফেসবুক তৈরি করেছিল তাদের তথ্য তা প্রদান করার জন্য পরবর্তীতে আস্তে আস্তে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়া হয় এবং মানুষের সাইকোলজি এনালাইসিস করে এমনভাবে গড়ে তোলা হয়েছে যাতে করে সকল বয়সী সকল মানুষ এটিতে আসক্ত হয়ে পড়ে এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ফেসবুকে ইনকাম এখন তুঙ্গে উঠে 

চলেছে এখন যদি প্রতিদিন ঘুমিয়ে কাটান তবুও তার প্রতিদিনের ইনকাম আসতেই থাকবে হাজার হাজার মানুষ মিলে না শুধুমাত্র আমাজন থেকে পণ্য কিনে এখান থেকে নতুন কিছু আবিষ্কার করে তৈরি করে কিভাবে সাহায্য করতে পারবে এমন কোন সিস্টেম তৈরি করা যায় মানুষ তাদের প্রতিদিনের ব্যবহার করতে বাধ্য হবে আর প্রতিনিয়ত প্রতিটি দেশে বিভিন্ন মানুষ  লাখ লাখ এভাবে করি সফলতা অর্জন করিনি

Reactions

Post a Comment

0 Comments