16 থেকে 30 বছর বয়স টা এমন একটা সময় যখন আমরা নিজেকে যেমন খুশি তৈরি করতে পারি নিজেকে কোনো ছেলে বা মেয়ের পিছনে ঘোরাতে পারে বা

 



16 থেকে 30 বছর বয়স টা এমন একটা সময় যখন আমরা নিজেকে যেমন খুশি তৈরি করতে পারি নিজেকে কোনো ছেলে বা মেয়ের পিছনে ঘোরাতে পারে বা নিজের কিছু ভালো হ্যাভ ইট তৈরি করতে পারে অর্থাৎ যেমনটা আমরা চাই যেমন জীবনী আমরা তৈরি করতে পারি কেবল আপনাকে ঠিক করতে হবে আপনি নিজেকে কোন রাস্তায় নিয়ে যেতে চান যেমন একটি ছেলে ছিল যারা বয়স ছিল 16 বছর ছিল যার কারণে সবাই থাকে পাগল বলতো তার বন্ধুরা তাকে ধরে মারত তার বন্ধুরা তাকে কোনো রকমের পাত্তা দিত না কিন্তু তারপরেও সে তার বন্ধুদের সঙ্গে থাকত আর কিছুদিন পর তার বন্ধুদের পাল্লায় পড়ে সে কিছু খারাপ অভ্যেসে জড়িয়ে পড়ে যেমন সিগারেট খাওয়ার ড্রিঙ্ক করা আগে তো সে 

অনেক ভয় পেত কিন্তু এখন ধীরে ধীরে তার মধ্যেও সাহস আসা শুরু করে এখন তার বন্ধুরা তাকে সাথে নিতে শুরু করে আর ছেলেটি ভাত্ত এখন হয়তো তাকে সবাই ভালবাসে কিন্তু ধীরে ধীরে যথাসময়ে যেতে থাকে এর জীবনটা খারাপ হওয়া শুরু হয় যতদিন পর্যন্ত নিজের ওপরে কোনো দায়িত্ব ছিল না ততদিন তো এভাবে ঠিক ঠাকই চলছিলো কিন্তু যখন দায়িত্ব আসা শুরু হয় তখন এর বন্ধু গুলো এর সঙ্গে দেখা করা কম করে দেয় সবাই নিজের জীবন নিজের পরিবার নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে বিজি হয়ে যায় সবাই ছোট ছোট কোন না কোন কাজ করা শুরু করে এরপর ছেলেটি সিদ্ধান্ত নেয় যে সে সবার মতো কোনো কাজ করে জীবনটা পার করতে চাইনা আর জীবনে যদি কিছু করতে হয় তাহলে এখনি তাকে জীবনটা পরিবর্তন করতে হবে এরপর সে সবাইকে ছেড়ে দেয় সবার সাথে দেখা করা বন্ধ 

করে দেয় আড্ডা মারা ছেড়ে দেয় নেশা করা ছেড়ে দেয় আর এইসব কিছু করার জন্য সবার প্রথমে সে তার অভ্যাস পরিবর্তন করার চেষ্টা করে আপনি যদি কোন কিছু করতে চান তাহলে সেটা তখনই হবে যখন আপনি এটা মনে রাখবেন এরপর শেখা শুরু করে আরেকটি ছোট বিজনেস ওপেন করে দিনরাত পরিশ্রম করে সেটাকে বড় করার চেষ্টা করে সেইসব লোক গুলো জানা আছে সে জীবনে কিছু করা থাকে হেল্প করে আর আস্তে আস্তে তার সমস্ত খারাপ অভ্যাসগুলো ছেড়ে এগিয়ে যায় ওই লোকগুলো বলেছিল থেকে উৎসাহ দিয়েছিল কিন্তু ছেলেটি নিজের পরিশ্রমের মাত্র দু'বছরে তার জীবনটাই বদলে দেয় এখন তার এলাকাতে লোকসভায় তার নাম করা শুরু করে তাই বলছি কখনোই নিজেকে খুব বেশি 

নিচে নামতে দেবেন না আসলে আপনার চিন্তার মধ্যে আছে লোক আপনাকে আপনার রূপ দেখে চিনবে না এটা দেখে ও আপনাকে চিনবে না যে আপনি কতটা ড্রিঙ্ক করতে পারেন বা কত টাকা খরচ করতে পারেন আপনি কি কাজ করেন আপনি জীবনে কিভাবে বেঁচে আছেন আপনার চিন্তা কি রকমের এর উপর নির্ভর করে আপনাকে সম্মান করবে তাই আপনার বয়স যদি এখন হয় 16 থেকে 30 বছর তাহলে আপনাকে এখন আপনার নলেজ এর দিকে মনোযোগ দিতে হবে কেবলমাত্র স্কুল বা কলেজে যে আপনাকে শেখানো হয় সেটাই যথেষ্ট নয় বরং আপনাকে বাইরে থেকেও অনেক কিছু শিখতে হবে 

এডুকেশন ছাড়াও আপনাকে আরো অনেক নলেজ রাখতে হবে এরপর যদি আপনি জব করেন বা কোন বিজনেস করেন সেখানে নিজেকে এমন ভাবে লাগিয়ে দিন যাতে এখন যে লেভেলে আপনি আছেন পরের বছর এর উপরের লেভেলে আপনি থাকতে পারেন আপনার চিন্তা এবং আপনার কনফিডেন্স এমন হতে হবে যা আপনার জীবনকে সম্পূর্ণ পরিবর্তন করার ক্ষমতা রাখে আমি কি করতে পারব আমি জানিনা আমি পড়তে পারব কিনা এইসব ভেবে নিজেকে দুর্বল করবেন না আপনি যায় কিছু করবেন সেটা 200% সঠিক হবে আর যদি না হয় তাহলে সেটাকে সঠিক করে দেখানোর অ্যাটিটিউড 

আপনার মধ্যে থাকতে হবে এরপর হলো আপনার চারপাশে ও আপনার সাথে সেই সমস্ত লোকগুলোকে রাখুন যারা বিশ্বাস করে যে আপনি কিছু করে দেখানোর ক্ষমতা রাখেন কারণ যখন আপনার মধ্যে কোন নেগেটিভ চিন্তা আসবে নিজের উপর কনফিডেন্স হারিয়ে ফেলবে তখন এরা আপনার কনফিডেন্স বাড়াতে অনেক বেশী সাহায্য করবে তো বন্ধুরা আপনারা আমার কথাগুলো বুঝতে পেরেছেন 


Reactions

Post a Comment

0 Comments